মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

সাধারণ তথ্য

    

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর, (ডিপিএইচই) হল স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের অধীন শহর এবং গ্রামাঞ্চলে পানি সরবরাহ, স্যানিটেশন ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় একটি অন্যতম প্রধান মাধ্যম,যা ১৯৩৬ সালে প্রতিষ্ঠিত। এদেশের প্রকৌশল অধিদপ্তর গুলোর মধ্যে একটি ঐতিহ্যবাহী, প্রাচীনতম, সেবাধর্মি বুনিয়াদি প্রতিষ্ঠান জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর ।

 

    জামালপুর জেলায় মহান স্বাধীনতার পুর্বে এ প্রতিষ্ঠানে একজন ওভারশিয়ারের তত্ত্বাবধানে স্বল্প সংখ্যক নলকূপ মেকানিক নিয়ে দপ্তরীয় কার্যাক্রম পরিচালিত হত। ময়মনসিংহ জেলার “জেলা সুপারভাইজার” ওভারশিয়ারের কার্যক্রম নিয়ন্ত্রন করতেন। অর্থাৎতখন জেলায় অধিকর্তা ছিলেন “জেলা সুপারভাইজার” এবং মহকুমায় অধিকর্তা ছিলেন “ওভারশিয়ার”। জামালপুর তখন ছিল মহকুমা।“ওভারশিয়ার” এর অফিস কার্যক্রম পরিচালিত হত শহরের বিভিন্ন যায়গায় ভাড়া বাড়ীতে। তবে প্রগতির ধাপে ১৯৬০-৬২ সনে জামালপুর শহরের বোষপাড়ায় ভূমি অধিগ্রহনের মাধ্যমে দপ্তরীয় নিজস্ব অফিস ও ভান্ডার স্থাপিত হয়। এখানে এখনো জেলা ভান্ডার এবং দপ্তরীয় কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের আবাসন ব্যবস্থা বিদ্যমান। এখানে কালের স্বাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে এ শহরের প্রথম স্থাপিত পানি সংরক্ষনের উচ্চ জলাধার বা Over Head Tank.

 

    স্বাধীনতার পর জামালপুর মহকুমায় “ওভারশিয়ারের” পরিবর্তে সহকারী প্রকৌশলীর (১ম শ্রেনীর গেজেটেড পদমর্যাদা সম্পন্ন) পদ সৃষ্টি হয়। তখন জামালপুর মহকুমায় ১০টি থানা বিদ্যমান ছিল। অধিদপ্তরীয় কর্মকান্ড পরিচালনার জন্য অন্যান্য লোকবলও পদায়িত হয়। শহরের মৃধা পাড়ায় একটি ভাড়া বাড়ীতে সহকারী প্রকৌশলীর অফিস চালু হয়। পরবর্তীতে সহকারী প্রকৌশলীর পদটি বিলুপ্ত করে উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী করা হয় এবং সহকারী প্রকৌশলীর অফিস হয় উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলীর অফিস। জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের ব্যাপক বিস্তার ঘটে ১৯৭৬ সনে।তখন প্রতিটি থানায় (বর্তমানে উপজেলা) ১ জন উপ-সহকারী প্রকৌশলী, ১ জন সিসিটি, ৪ জন নলকূপ মেকানিক, ১ জন এম,এল,এস,এস বা পিয়ন এবং একজন চৌকিদার সর্বমোট ৮ জন জনবল নিয়ে প্রতিটি থানায় থানা অফিসের কার্যক্রম শুরু হয়।এ সময় প্রতিটি উপজেলায় অধিদপ্তরের নিজস্ব অফিস কাম গুদাম ভবন নির্মিত হয়।

    ১৯৭৯ সনে জামালপুর মহকুমায় জেলায় উন্নিত হয়। সাথে সাথে শেরপুর থানা মহকুমায় উন্নিত এবং সেখানে উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলীর অফিসও স্থাপিত হয় এবং জামালপুর, শেরপুর এদুটি উপ-বিভাগীয় কার্যাক্রম ময়মনসিংহ জেলার নির্বাহী প্রকৌশলী কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত হতে থাকে।জেলায় রুপান্তরিত হওয়ার পর ১৯৮৩ সনের জুনমাসে জামালপুর জেলায়  নির্বাহী প্রকৌশলীর পদ সৃষ্টি হয়। অন্যন্য লোকবল সহ জুন মাসেই শহরের বজ্রাপুরের একটি ভাড়া বাড়ীতে নির্বাহী প্রকৌশলীর অফিসের কার্যাক্রম শুরু হয়।

 

      শহরের সাতপাকিয়া মৌজায় জেলা অফিস নির্মানের জন্য ভূমি অধিগ্রহন করা হয়। যেখানে নির্মিত হয়েছে আজকের নির্বাহী প্রকৌশলীর সু-দৃশ্য অফিস ভবন।  

 

     ১৯৮৮ সনের ফেব্রুয়ারী মাসে অধিদপ্তরীয় তদানিন্তন প্রধান প্রকৌশলী জনাব মোয়াজ্জেম হোসেম খান এই ভবনের শুভ উদ্বোধন করেন। এ ভবনকে ঘিরেই চলছে বর্তমানে জামালপুর জেলায় জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের উন্নয়ন কর্মকান্ড।


Share with :

Facebook Twitter